আয়করের জন্য নিবন্ধন প্রয়োজন কেন?

আয়করের জন্য নিবন্ধন প্রয়োজন কেন?

একজন করদাতা কে নিবন্ধনের মাধ্যমে করদাতা হিসাবে স্বনাক্ত করা হয়। ব্যক্তি করদাতা (অনিবাসী বাংলাদেশী সহ), হিন্দু যৌথ পরিবার , অংশিদারী ফার্ম, ব্যক্তি সংঘ এবং আয়কর আইনের দ্বারা সৃষ্ট কৃত্রিম ব্যক্তির আয়ের সীমা ২,৫০,০০০/= টাকার উপরে হলে নিবন্ধন প্রয়োজন। নিবন্ধিত করদাতা বছর শেষে রিটার্ন জমা দেওয়ার মাধ্যমে বাৎসরিক আয়, ব্যয় ও সঞ্চয় বর্ণনা করেন।

নিন্মোক্ত ক্ষেত্রে আয়কর নিবন্ধন প্রয়োজনঃ

(১) আমদানীর উদ্দেশ্যে ঋনপত্র খোলার সময়।

(২) আমদানী রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট পাওয়ার উদ্দেশ্যে আবেদনের সময়।

(৩) কর্পোরেশন বা পৌরসভা এলাকায় ট্টেড লাইসেন্স নবায়ন করার সময়।

(৪) চুক্তি কার্যকর, পন্য সরবরাহ বা সেবা প্রদানের লক্ষ্যে দরপত্র দাখিলের সময়।

(৫) কোম্পানী আইন, ১৯৮৪-এর আওতায় নিবন্ধনকৃত কোন ক্লাবের সদস্য হবার জন্য আবেদন দাখিল করার সময়।

(৬) সাধারণ বিমার সার্ভেয়ার হিসেবে তালিকাভুক্তি বা লাইসেন্স প্রাপ্তি বা নাবায়নের সময়।

(৭) কোন সিটি কর্পোরেশন বা জেলা সদরের কোন পৌরসভা এলাকায় অবস্থিত ভূমি, ভবন বা এপার্টমেন্টর চুক্তি মূল্য যদি এক লক্ষ টাকার উর্ধে হয় ,সেই ক্ষেত্রে ঐ  ভুমী, ভবন বা ফ্লাট ক্রয়ের রেজিস্ট্রেশনের সময়।

(৮) সিটি কর্পোরেশন এলাকার মধ্যে অবস্থিত কোন ভূমি ,ভবন বা কোন এপার্টমেন্টর ক্রেতা বাংলাদেশের অনিবাসী বাংলাদেশী হইলে তার ক্রয় এর রেজিষ্ট্রেশনের সময় (f) এর বিধান কার্যকর হইবে না।

(৯) কর, জিপ বা মাইক্রবাসের মালিকানা পরিবরতন কিংবা ফিটনেস রেজিস্ট্রেশন নবায়নের সময়।

(১০) কোন বানিজ্যিক ব্যাংক বা লিজিং কোম্পানী কর্তৃক কোন ব্যক্তিকে ৫ (পাঁচ) লক্ষ টাকার অধিক ঋণ বরাদ্দ দানকালে।

(১১) ক্রেডিট কার্ড ইস্যুর সময়।

(১২) ডাক্তার, চার্টার্ড একাউনন্ট্যান্ট, কষ্ট এন্ড ম্যানেজমেন্ট একাউনন্ট্যান্ট, আইনজীবী বা আয়কর পেশাজীবির পেশাদারী লাইসেন্স অনুমোদনের সময়।

(১৩) কোন কোম্পানির ডাইরেক্টর বা কোন কোম্পানির স্পসর শেয়ার হোল্ডার হওয়ার সময়।

(১৪) বাংলাদেশের নাগরিক নয় এমন অনিবাসীর ক্ষেত্রে (k) এর বিধান কার্যকর হইবে না।

(১৫) মুসলিম বিবাহ ও তালাখ (নিবন্ধন) আইন, ১৯৭৪ এর আওতায় নিকা রেজিষ্ট্যোরের লাইসেন্স প্রদানের সময়। তবে শর্ত থাকে যে, যে ব্যক্তি ইতিমধ্যে নিকা রেজিষ্ট্র্যার হিসেবে লাইসেন্স প্রাপ্ত হয়েছে তার ক্ষেত্রে অত্র বিধান কার্যকর হওয়ার তিন মাসের মধ্যে টি, আই. এন সনদ সংগ্রহ করিতে হইবে।

(১৬) কোন বানিজ্য সংস্থার মেম্বারশিপ নবায়নে বা মেম্বারশিপ আবেদন কালে।

(১৭) গৃহসম্পত্তি নির্মাণের নিমিত্ত রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক ), চিটাগাং ডেভেলপমেন্ট অথরিটি (সিডিএ), খুলনা ডেভেলপমেন্ট অথরিটি (কেডিও) এবং রাজশাহী ডেভেলপমেন্ট অথরিটি (আরডিও) হতে অনুমোদন পাওয়ার উদ্দেশ্যে প্লান জমা প্রদানের সময়।

(১৮) ড্রাগ লাইসেন্স ইস্যু করনের সময়।

(১৯) সিটি কর্পোরেশন, পৌর সভা বা ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড এলাকার মধ্যে বানিজ্যিক ভিত্তিক বিদ্যুৎ সংযোগের আবেদনের সময়।

(২০) ভাড়ায় চলতি বাস, ট্রাক, প্রাইমমোভারস, লরী ইত্যাদি রেজিষ্টেসনে, মালিকানা পরিবর্তন, ফিটনেস নবায়নের সময় এবং প্লেইং ফর হায়ারের সময়।

(২১) ভাড়ায় চলতি ওয়াটার ভ্যাসেলসহ লঞ্চ, ষ্টীমার, ফিসিং ট্রলার, কার্গো, কোস্টার, ডাম্প-বার্জ ইত্যাদির সার্টিফিকেট প্রদান বা নবায়নের সময়।

(২২) ইন্সুরেন্স কোম্পানির এজেন্ট হিসেবে সার্টিফিকেট রেজিষ্টেশন বা নবায়ন করার সময়।

(২৩) জেলা প্রশাসকের কার্যালয় কর্তৃক বা পরিবেশ অধিদপ্তর কর্তৃক ইট প্রস্তুতের অনুমতি প্রদান বা অনুমতি নবায়নের সময়।

(২৪) উপজেলা, পৌরসভা, সিটি কর্পোরেশন এবং জাতিয় নির্বাচনের প্রার্থীদের মনোয়নপত্র জমা দেয়ার সময়।

(২৫) কোন সিটি কর্পোরেশন বা জেলা সদরের কোন পৌরসভা এলাকায় অবস্থিত ইন্টারন্যাশনাল কারিকুলাম অনুযায়ী ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে ছাত্র ভর্তির সময় পিতা/মাতা অভিভাবক হওয়ার কারণে।

Leave a Reply