আয়কর রিটার্ন জমার প্রয়োজনীয়তা ও নির্ধারিত সময়ে রিটার্ন জমা না দিলে গৃহীত ব্যবস্থা।

আয়কর রিটার্ন জমার প্রয়োজনীয়তা ও নির্ধারিত সময়ে রিটার্ন জমা না দিলে গৃহীত ব্যবস্থা।

আয়কর কর্তৃপক্ষের নিকট করদাতার বার্ষিক আয়ের সংক্ষিপ্ত বিবরণ উপস্থাপন করার মাধ্যম হচ্ছে আয়কর রিটার্ন। আয়কর রিটার্ন জমার মাধ্যমে করদাতার বার্ষিক আয়-ব্যয় এবং সম্পদ ও দায়ের তথ্য দাখিল হয়। নির্ধারিত সময়ে আয়কর রিটার্ন দাখিল না করলে, সংশ্লিষ্ট করদাতাকে উপ-কর কমিশনার কর্তৃক জরিমানা আরোপের বিধান রয়েছে।

নির্ধারিত সময়ে আয়কর রিটার্ন দাখিল না করিলে, সংশ্লিষ্ট করদাতাকে আত্নপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দেয়ার লক্ষ্যে আবশ্যিকভাবে ধারা-১৩০ মোতাবেক নোটিশ প্রদান সাপেক্ষে খেলাপী করদাতার সর্বশেষ আরোপিত আয়করের ১০% অথবা কমপক্ষে ১,০০০/- টাকা ও পরবর্তী প্রতি খেলাপী দিবসের জন্য ৫০/- টাকা, এ দু’টির মধ্যে যেটি বেশী, উপ-কর কমিশনার কর্তৃক তাহা জরিমানা আরোপ করিতে পারবেন। শর্ত থাকে যে-

(১) উপ ধারা – 124(1) অনুযায়ী কোন নতুন ব্যক্তি-করদাতা, যাহার আয়ের উপর ইতোপূর্বে কখনো করারোপিত হয় নাই, তাহার ক্ষেত্রে আরোপযোগ্য মোট জরিমানার পরিমান ৫,০০০/- টাকার বেশি হইবে না।

            (২) উপ ধারা – 124(1) অনুযায়ী কোন নতুন ব্যক্তি-করদাতা, যাহার আয়ের উপর ইতোপূর্বে করারোপিত হইয়াছে এমন কোন পুরোনো ব্যক্তি-করদাতার ক্ষেত্রে এইরূপ জরিমানার পরিমান তাঁহার সর্বশেষ নিরূপিত আয়ের উপর ধার্যকৃত করের ৫০% বা ১,০০০/- টাকা, দু’টির মধ্যে যেটি বেশি, তাহা জরিমানার আরোপযোগ্য হবে।

Leave a Reply